ইউরিক এসিড বাড়লে কিভাবে বুঝবেন? ঘরোয়া উপায়ে ইউরিক এসিড নিয়ন্ত্রণ করুন।

ইউরিক এসিড নিয়ন্ত্রণ করুন ঘরোয়া উপায়



আজকেরে এই লেখাটি সম্পূর্ন ইউরিক অ্যাসিড সম্পর্কিত। যাদের ইউরিক এসিড বেড়ে গেছে বা ইউরিক এসিড বাড়ার কারণে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে তারা এই Article-টি অবশ্যই পড়বেন।

আজকে এই লেখাটি থেকে আপনি যে বিষয়গুলো জানতে পারবেন তা হলো -

ইউরিক অ্যাসিড কি?

ইউরিক এসিড বাড়ে কেন?

ইউরিক এসিড বাড়লে কি হয়? এবং

প্রাকৃতিক উপায়ে কোন ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই ইউরিক অ্যাসিড কমানোর কি উপায়?


এছাড়াও আরও দুটি বিষয়ে আপনাদের জানাবো তা হলো ইউরিক এসিড বাড়লে কি কি খাবার খাওয়া যাবেনা এবং কোন কোন খাবার খেতে হবে যাতে ইউরিক অ্যাসিড নিয়ন্ত্রণে থাকে।

তো চলুন জেনে নিই আজকের এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো



ইউরিক এসিড বাড়লে কিভাবে বুঝবেন? ঘরোয়া উপায়ে ইউরিক এসিড নিয়ন্ত্রণ করুন।


ইউরিক এসিড কি?

ইউরিক এসিড হল আমাদের দেহের এক ধরনের টক্সিক উপাদান। আমাদের দেহে পটাশিয়াম, সোডিয়াম বাই কার্বনেট বা অ্যালকালাইন অর্থাৎ ইলেকট্রোলাইটস এর ব্যালেন্স রক্ষায় ইউরিক এসিডের ভূমিকা রয়েছে। সবার রক্তে ইউরিক অ্যাসিড থাকে তবে খুব স্বল্প পরিমাণে। ইউরিক অ্যাসিড আমাদের দেহের ডেটস এবং খাদ্যের উপাদান পিউরিন থেকে উৎপন্ন হয় এবং যা মূত্রর সঙ্গে মিশে থাকে।

ইউরিক এসিড বাড়ে কেন?

ইউরিক অ্যাসিড নামের এই টক্সিক উপাদানের তিনভাগের দুইভাগ-ই আমাদের দেহের যকৃত বা লিভার এ তৈরি হয়। বাকি এক ভাগ পিউরিন সমৃদ্ধ খাবার থেকে গৃহীত হয় বা তৈরি হয়। এই যকৃতে উৎপন্ন ইউরিক এসিডের বাড়তি অংশ অন্যান্য বর্জ্য পদার্থের মতন মূত্রের মাধ্যমে দেহ থেকে অপসারিত হয়। কিন্তু মূত্রের মাধ্যমে যা বের হয় এবং যকৃতের যা উৎপন্ন হয় অন্যদিকে খাবারে অতিমাত্রায় পিউরিন গ্রহণের ফলে এর থেকে যে ইউরিক এসিড উৎপন্ন হয় এর ভেতরে যখন সমতা না থাকে অর্থাৎ যতটা পরিমাণ বাইরে বের হয়ে যাচ্ছে তার থেকে যদি দেহে উৎপন্ন ইউরিক এসিড বেড়ে যায় তখনই এর ঘনত্ব বাড়তে থাকে এবং তখনই আমরা বলি যে ইউরিক এসিড বেড়ে গেছে।

ইউরিক এসিড বেড়ে গেলে কি হয়?

যখন ইউরিক এসিড বেড়ে যায় তখন আমাদের দেহের অভ্যন্তরে বিশেষ করে কিডনির উপরে দীর্ঘদিন জমে থাকে এবং তা রোনাল্ড স্টোন বা কিডনির পাথর হিসেবে দেখা যায় এবং কিডনি ঠিকমত কাজ করেনা। মূত্রের মাধ্যমে ইউরিক অ্যাসিড ও অন্যান্য বর্জ্য দেহ থেকেও বের করতে পারেনা। কিডনির কার্যক্ষমতা নষ্ট হয় এবং কখনও কখনও কিডনি ড্যামেজ হয়ে যায়। এছাড়া বাড়তি ইউরিক অ্যাসিড শরীরের হাড়ের বিভিন্ন জয়েন্টে ক্রিস্টালের মতো জমে যায়। যাতে অনেক রোগী হাড়ের সন্ধিস্থলে ব্যথা অনুভব করে, হাড় ফুলে যায় এবং এই ব্যাথাটাই আমরা গাউট বা গেঁটেবাত হিসেবে চিনি। এখানেই শেষ নয় হার্টের বিভিন্ন রোগেও ইউরিক এসিডের ভূমিকা রয়েছে। কারণ এটি আমাদের দেহের সোডিয়ামের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। কাজেই হাই প্রেসার এবং হার্টের অসুস্থতাসহ বিভিন্ন ধরনের রোগ হবার সম্ভাবনা থাকে। ইউরিক এসিডের পরিমাণ যখন একজন পূর্ণবয়স্ক পুরুষের দেহে প্রতি ডেসিলিটারে রক্তের ৭ মিলিগ্রাম এবং পূর্ণ বয়স্ক নারীদের প্রতি ডেসিলিটারে রক্তে ৬ মিলিগ্রাম থাকে তখন তাকে স্বাভাবিক মাত্রা বলেই ধরা হয়। এর থেকে বেড়ে গেলে তখনই আপনাকে ইউরিক অ্যাসিড নিয়ন্ত্রণের জন্য ব্যবস্থা নিতে হবে।

প্রাকৃতিক ভাবে কোন ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই কীভাবে আপনার ইউরিক অ্যাসিড কে নিয়ন্ত্রণে আনবেন?

আমি যে যে খাবারের কথাগুলো বলব সেই খাবারগুলো অবশ্যই নোট রাখবেন যাতে আপনি নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট মাত্রায় সেই খাবারগুলো গ্রহণ করতে পারেন।

১। পানি : প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে দেহের যদি ইউরিক এসিডের মাত্রা বেড়ে যায়। ন্যূনতম সাড়ে ৩ থেকে ৪ লিটার পানি পান করবেন।

পানি কখন পান করলে সবচেয়ে ভালো ফল পাবেন? এর মধ্যে প্রথমেই হলো সকালে ঘুম থেকে উঠে বাসি পেটে পানি পান করবেন। যখন সূর্যোদয় হয় সেই সময় ন্যূনতম এক লিটার হালকা গরম গরম পানি পান করবেন এবং তা খুব ধীরে ধীরে এবং একটি জায়গায় বসে। কোন খাবারের মাঝে কখনো পানি পান করবেন না। সকল ধরনের খাবার খাওয়ার অন্তত ৩০ মিনিট পূর্বে এবং 30 মিনিট পরে পানি পান করুন।

২। তেল : আপনি রান্নায় কোন তেল খাচ্ছেন তার উপরে নির্ভর করে আপনার দেহে ইউরিক এসিড কমা বা বাড়া। যদি ইউরিক এসিড বেড়ে যায় তাহলে চেষ্টা করবেন সবচেয়ে কম তেল খেতে বা কম তেল দিয়ে রান্না করতে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ভাবে আপনি যদি অল্প পরিমাণে অলিভ অয়েল দিয়ে রান্না করতে পারেন তাহলে খুব তাড়াতাড়ি আপনার ইউরিক এসিডের মাত্রা একেবারে নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে। এবং একজন মানুষের জন্য সারাদিনে ২ টেবিল চামচ এর বেশি অলিভ অয়েল গ্রহণ করা যাবে না।

৩। বাদাম : আপনাকে বাদাম খেতে হবে তবে রাস্তাঘাটের ভাজা বাদাম নয় বা চিনাবাদাম নয়। নির্দিষ্ট বাদাম খেতে হবে তার মধ্যে প্রথম বাদাম টি হচ্ছে আখরোট বা ওয়ালনাট এবং দ্বিতীয়টি হচ্ছে আমন্ড বা কাট বাদাম। এই দুটো বাদাম প্রতিদিন চারটি করে রাত্রে ভিজিয়ে রেখে সকালবেলায় খাবেন অথবা সকালে ভিজিয়ে রেখে বিকেলের স্ন্যাকস হিসেবে খাবেন। খুব ভালো করে চিবিয়ে চিবিয়ে খাবেন। প্রত্যেকটি বাদাম মুখে এমন ভাবে চিববেন যাতে এর প্রতিটি অংশ প্রতিটি কণা মুখের ভেতরে খুব ভালোভাবে ভেঙে যায়।

৪। লেবু : প্রচুর পরিমাণে লেবু খেতে হবে অথবা কমলালেবু খেতে হবে। লেবু বা কমলা লেবুতে যে সাইট্রিক এসিড রয়েছে তা ইউরিক অ্যাসিড কমানোর একটি বড় হাতিয়ার। এই ভিটামিন সি এবং সাইট্রিক এসিড ইউরিক অ্যাসিড যেমন নিয়ন্ত্রণে আনতে পারে তেমনি খুব সহজেই আপনার শরীরের ব্যথা দূর করতে পারে। লেবু খাওয়ার সবচেয়ে সুন্দর এবং সহজ উপায় হলো আপনি দুপুরের খাবারের ৩০ মিনিট পরে অথবা এক ঘন্টা পূর্বে এক গ্লাস হালকা গরম পানির ভেতরে ৩ থেকে ৪ চা চামচ পরিমাণ লেবুর রস মিশিয়ে তা পান করবেন। যদি আপনি চান তাহলে এর সঙ্গে দুই এক চিমটি সৌন্ধব লবণ অথবা পিংক সল্ট মিশিয়ে নিতে পারেন। কিন্তু কোনভাবেই এর সঙ্গে চিনি বা মিষ্টি জাতীয় কোন উপাদান একেবারেই মেশাবেন না। আর খাবারের সঙ্গে লেবু না খেয়ে এইভাবে লেবু খেলে সবচেয়ে ভালো উপকার পাবেন।

৫। আদা : প্রতিদিন অন্তত এক থেকে দেড় ইঞ্চি কাঁচা আদা চিবিয়ে খাবেন অথবা এক টেবিল চামচ পরিমাণ আদার রস খাবেন। এটা আপনি দুপুরের খাবারের ৩০ মিনিট পূর্বে খেতে পারেন।

৬। কালো গোলমরিচ : কালো গোলমরিচ গোলমরিচ তিন থেকে চারটি দানা আপনি যে কোন খাবারের সঙ্গে খেতে পারেন অথবা দুধের সঙ্গে মিশিয়ে খেতে পারেন।

৭। রসুন : কাঁচা রসুনের কোয়া ১ থেকে ২ টি দুপুরের ভাতের সঙ্গে খান অথবা সকালবেলায় খান। এই খাবারগুলোর পাশাপাশি অবশ্যই আপনাকে প্রতিদিন ৩০ মিনিট ব্যায়াম করতে হবে। ঘাম ঝরানোর ব্যায়াম করা ইউরিক এসিড নিয়ন্ত্রণ এর অনেক বড় একটি হাতিয়ার এবং এই খাবারগুলো খাওয়ার পাশাপাশি আপনি ইউরিক এসিড বেড়ে গেলে সকল ধরনের ডাল বিশেষ করে মসুর ডাল, মটরশুঁটি, সিম, কাঁঠালের বিচি অর্থাৎ বীজ জাতীয় খাবার যেমন রাজমা ইত্যাদি বাদ দেবেন। চিংড়ি মাছ, শামুক, কাঁকড়া এবং সকল ধরনের সামুদ্রিক মাছ, ডিমের কুসুম বাদ দিতে হবে।
সবজির ভেতরে আপনি কুমড়া, ঢেঁড়স, পাকা টমেটো, পালংশাক, পুঁইশাক, ফুলকপি, ব্রকলি, মিষ্টি কুমড়া এবং অ্যালকোহল, ক্যাফেইন জাতীয় খাবার চা-কফি, কোমলপানীয়, চকলেট ইত্যাদি একেবারেই খাবেন না। সকল ধরনের মিষ্টি খাবার পরিহার করবেন। যে খাবার গুলো খেতে পারবেন তার মধ্যে মুরগির মাংস, দেশি মাছ এবং কুসুম ছাড়া শুধুমাত্র ডিমের সাদা অংশ এবং অধিক পরিমাণে আঁশযুক্ত খাবার খাবেন। আঁশযুক্ত খাবার ইউরিক এসিডের মাত্রা দ্রুত কমিয়ে আনে। যে ফোনগুলো মিষ্টি স্বাদের সেগুলো ইউরিক অ্যাসিড বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়।
তাই ইউরিক এসিড বেড়ে গেলে টক স্বাদযুক্ত ফল খাবেন। কিন্তু বাসি পেটে সকালবেলায় এবং সূর্যাস্তের পরে টক ফল খেলে গ্যাস এসিডিটি বাড়ে। তাই দিনের মধ্যভাগে তবে মূল খাবারের এক ঘন্টা পূর্বে বা পরে টক ফল খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। ইউরিক এসিড বেড়ে গেলে দিনে দুইবার গ্রিন টি পান করুন। এক সকালবেলায় নাস্তার একঘন্টা পরে এবং দুই সূর্যাস্তের আগে। এইভাবে গ্রিন টি পান করলেও খুব ভালো উপকার মিলবে।



পোস্ট ট্যাগ-

ইউরিক এসিডের ডায়েট চার্ট, ইউরিক এসিডের লক্ষণ, ইউরিক এসিড নরমাল রেঞ্জ, ইউরিক এসিডের ব্যায়াম, ইউরিক এসিড কমানোর ঔষধ, ইউরিক এসিডে নিষিদ্ধ খাবার, ইউরিক এসিড কমানোর উপায়, ইউরিক এসিড কমাবে যে তিন খাবার।

আজকের Artical-টি কেমন লাগলো তা কমেন্টে জানাতে পারেন। আর এরকম গুরুত্বপূর্ণ বিষয় জানতে অবশ্যই Solution Mind Site-এর সাথে থাকুন। এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য সকলকে ধন্যবাদ।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url